শীতকালে কেমন টি-শার্ট পরা ‍উচিৎ | Full Sleeve T-shirt for winter | Winter fashion |T shirt style for boys

শীতকালে কেমন টি-শার্ট পরা ‍উচিৎ | Full Sleeve T-shirt for winter | Winter fashion |T shirt style for boys

টি-শার্ট হলো এমন একটি ক্লথ আইটেম যেটিকে পরেন নি কিংবা চেনে না এমন কাউকে হয়তো সারা পৃথিবীতে খুঁজে পাওয়া যাবে না। যদি না সে আদিবাসী হয়। আর শীতকালে পড়ার জন্য টি-শার্ট এর কথা উঠলেই সবার সর্বপ্রথম মাথায় আসে ফুল স্লিপ টিশার্ট অর্থাৎ ফুল হাতার টিশার্টের কথা। যেহেতু শীতকাল আপনি অবশ্যই একটি ফুল স্লিপ টিশার্ট কিনবেন অথবা পড়বেন। সেই প্রেক্ষাপটে আজকের এই কন্টেন্ট টি হতে চলেছে সম্পূর্ণ ফুল স্লিপ টিশার্ট এর উপর। আজকের এই লেখাটি থেকে আপনাদের বোঝানোর চেষ্টা করবো ফুল স্লিপ টিশার্ট এর ফিটিং, ফুল স্লিপ টিশার্ট এর রং, কেমন ফুল স্লিপ টিশার্ট কিনবেন না, ফুল স্লিপ টিশার্ট এর ধরন এরকম আরও অনেক কিছু।

আরও পড়ুনঃ

কিভাবে সঠিক মানিব্যাগ বা, ওয়ালেট কিনবেন?

বাইকের পেছনের সিট কেন উঁচু এবং কাটা থাকে?

নাম্বার ওয়ান বিষয় টি হচ্ছে ফুল স্লিপ টিশার্ট এর ধরন,

ফুল স্লিপ টিশার্ট মুলত ৪ ধরনের হয়ে থাকে সেগুলো হলোঃ

  1. Polo Neck 
  2. V Neck 
  3. Turtle Neck & 
  4. Round Neck

এই ৪ ধরনের ফুল স্লিপ টিশার্ট কে নানাভাবে স্টাইল করা যায় কিংবা পরা যায় এবং এগুলো আলাদা আলাদা রকমের আউট ফিটের সাথে আলাদা আলাদা ভাবে ম্যাচ হয়ে যায়। তো এই বিষয়ে আলাদা একটা কন্টেন্টে আলোচনা করবো।


কেমন টিশার্ট কিনবেন বা কেনা উচিৎ?

প্রথমত, আপনি কখনোই খুবই কম দামি ফুল স্লিপ টিশার্ট কিনতে যাবেন না। বিশেষ করে আমি সেই সকল টি-শার্ট গুলোর কথা বলছি যেগুলো কম্বো প্যাক হিসাবে বিক্রি হয়। ধরেন ৫০০ কিংবা ১০০০ টাকায় চারটা পাঁচটা করে টি-শার্ট পাওয়া যায়। এই টিশার্ট গুলো কোয়ানটিটির ক্ষেত্রে বেশি কিন্তু কোয়ালিটির ক্ষেত্রে অনেক লো। কাজেই কখনোই এরকম টিশার্ট কেনা উচিত নয়। কারণ আপনি যদি এগুলো কেনেন তাহলে গ্যারান্টি এগুলোকে বেশি দিন ব্যবহার করতে পারবেন না।

দ্বিতীয়ত, ছেঁড়াফাটা টি-শার্ট। এমন অনেকে রয়েছেন যারা নিজেকে বেশি স্টাইলিশ দেখানোর চক্করে ছেড়া ফুটা টিশার্ট পরেন। কিন্তু এটা একটা বড় ভুল ছাড়া আর কিছই না। কারণ আমাদের দেশে যে রকম কালচার এ কালচারে এই ছেঁড়াফাটা টি-শার্ট কোনভাবেই চলে না। তারপরও আপনি যদি ছেঁড়া-ফাঁড়া টি-শার্ট পরেন তাহলে আপনি সবার সামনে একটি হাসির পাত্র ছাড়া আর কিছুই হবেন না। এটা ১০০% নিশ্চিত।

তৃতীয়ত, যে কথাটা আমি সব সময় বলি সেগুলো হলো আপনার কখনোই কার্টুন ডিজাইন অথবা লোগো প্রিন্টেড টিশার্ট ব্যবহার করা উচিৎ না। এই কথাটি আমি আপনাদেরকে আবার স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি আপনি যদি এরকম ধরনের টিশার্ট পরেন তবে আপনাকে অবশ্যই একটি বাচ্চা লাগবে এবং আপনি নিজে আপনার ফ্যাশন জ্ঞানকে গলাটিপে হত্যা করবেন। কাজেই আপনি থার্ড ক্লাস লেখা কিংবা ডিজাইন এর টিশার্ট কেনা থেকে বহু দুরে থাকবেন।

তবে আমি কিন্তু আপনাদেরকে ডিজাইন থাকা টি-শার্ট পরতে মানা করছি না। এমন অনেক ডিজাইন রয়েছে যেগুলো সলিড কালারের টি-শার্ট গুলোকে স্টাইলের ক্ষেত্রে টক্কর দেয়। সেই ডিজাইন গুলো সম্পর্কে আমি আপনাদেরকে একটু পরে বলতেছি তবে তার আগে বিষয়টির দিকে খেয়াল করি।


টি-শার্ট এর ফিটিং কেমন হতে হবে?

ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন এটি একটি ফুল স্লিপ টিশার্ট। তো এবার আপনাদেরকে এটির পারফেক্ট ফিটিং সম্পর্কে বলবো।

প্রথমত, এটির শোল্ডারে অর্থাৎ কাধে যে সেলাই টি রয়েছে সেটি থাকবে হাত যেখন থেকে নিচে নেমে গেছে সে জয়েন্ট বরাবর। এই ফুল স্লিপ টিশার্ট আপনার চেঞ্জ অর্থাৎ বুকের এরিয়াতে সবসময় টাইট হয়ে থাকবে। তার সাথে পেটের এরিয়াতে এটি হালকা একটু লুজ হয়ে থাকবে তবে অত্যাধিক নয় এবং স্লিপ কিংবা হাতা যদি আপনি ফোরামসে ওঠান তাহলে এটি আপনার ফোরামকে ভালোভাবে হাক করে থাকবে কিংবা সেই জায়গাটিতে টাইট হয়ে থাকবে এবং এটির স্লিপ লেন্থ অর্থাৎ হাতা লম্বা হবে আপনার হাতের আঙ্গুলের যে জয়েন্ট গুলো রয়েছে সেগুলো থেকে এক বা, দেড় ইঞ্চি উপর পর্যন্ত।


আপনার কেমন টি-শার্ট কেনা উচিৎ? 

টিশার্ট কেনা নিয়ে একটি বিষয়ের প্রচলন রয়েছে যে, সব সময় সলিড কালার টি শার্ট কেনা উচিৎ। এই কথাটি ঠিক কিন্তু রেগুলার ব্যবহারের জন্য সলিড কালারের টি শার্ট অত বেশি এট্রাকটিভ না। যদি টিশার্টে হালকা একটু ডিজাইন থাকে তাহলে সেটি রেগুলার ইউজের জন্য পারফেক্ট তবে লেয়ারিং এর ক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে সবসময় সলিড কালারের টিশার্ট ব্যবহার করতে হবে। কিন্তু এখন সমস্যা হল যে আপনি কেমন টিশার্ট কিনবেন। আপনি ডিজাইন টিশার্ট কিনবেন না সলিড কালার এর টি শার্ট কিনবেন। এই বিষয়টি এখন আমি আপনাদের কাছে ক্লিয়ার করে দেব।


আমাদের এমন টিশার্ট কিনতে হবে যেটি দিয়ে এক ঢিলে দুই পাখি মারা যায়। মানে টি-শার্ট টিতে ডিজাইন তো থাকবে কিন্তু এমন ভাবে থাকবে যেটি লেয়ারিং করার সময় দেখা যাবে না। এ বিষয়টি বুঝার জন্য ছবির দিকে লক্ষ করুন। আপনি যদি লক্ষ্য করেন তাহলে বুঝতে পারবেন যে এর ডিজাইন হাতের সাইডে এবং মাঝখানে এটির সলিড সাদা কালারের। তো ডান পাসের ছবিতে লেয়ারিং করার ক্ষেত্রে কিন্তু সাইটের ডিজাইন গুলো দেখা যায় না শুধু মাঝখানের কালারটা দেখা যায়। মানে আপনি যদি এই টিশার্ট দিয়ে লেয়ারিং করেন তাহলে বুঝা যাবে যে আপনি একটি সাদা কালারের টিশার্টের উপর লেয়ারিং করেছেন। আর আপনি এটিকে লেয়ারিং ছাড়া পড়লে এটির ডিজাইনটি দেখা যাবে এবং আপনাকে অনেক বেশি স্টাইলিশ লাগবে এবং সবার থেকে আন্যরকম। কাজেই সব সময় এরকম ধরনের টিশার্ট কেনা উচিৎ।

আপনি হয়তো এই লেখাটি থেকে একটি পার্ট মিসিং মনে করতে পারেন আর সেটি হল টি শার্টের রং। টি-শার্টের ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি অন্যতম স্টাইলিশ রং রয়েছে। সেই রং গুলো ফুল স্লিপ টিশার্ট অর্থাৎ হাতা লম্বা টিশার্ট এবং হাপ স্লিপ টিশার্ট উভয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। তাই সেগুলো সম্পর্কে জানতে চাইলে এই লিংকে ক্লিক করে জেনে নিতে পারেন। কারন এই কন্টেন্ট টিতে সেরা কিছু টিশার্ট এর কথা বলেছি যে টিশার্ট গুলো আপনার কাছে অবশ্যই থাকা উচিৎ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top